,

Facebook
Twitter
LinkedIn
WhatsApp

আগের দিন প্যারিসের লাল গালিচায় হেঁটে ক্যারিয়ারের প্রথম ব্যালন ডি’অর উঁচিয়ে ধরে বেনজেমার জন্য গতকালের ম্যাচটি ছিলো বিশেষ এক ম্যাচ এবং এই ম্যাচে নিজে গোল করে যেমন রাতটা স্মরণীয় করে রাখলেন তেমনি তার দলও এলচের বিপক্ষে পেয়েছে ৩-০ গোলের বড় জয়।

বিশ্বসেরার খেতাব পাওয়ার পর এই প্রথম সবুজ ঘাসে পা রাখলেন বেনজেমা, যদিও তার প্রিয় বার্নাব্যুতে সেই ম্যাচ ছিলো না তবে বেনজেমার কাছে এখন সব মাঠই যে এক তার প্রমাণ তিনি দিয়ে দিলেন ম্যাচের পুরোটা সময়জুড়ে। আগের ম্যাচেই বার্সেলোনাকে উড়িয়ে দেওয়া রিয়াল মাদ্রিদ এলচের বিপক্ষে ছিলো আরো বেশি নিখুঁত। ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণ সাজাতে থাকা রিয়াল মাদ্রিদ ছোট খাটো কিছু সুযোগ মিস করলেও লিড নিতে খুব একটা দেরি করেনি। ম্যাচের বয়স যখন ১১ মিনিট তখনই রিয়াল মাদ্রিদকে এগিয়ে দেন ভালভার্দে যা তার টানা দ্বিতীয় ম্যাচে গোল এবং চলতি মৌসুমে ষষ্ঠ গোল। তার আগে পরে অবশ্য এগিয়ে যাওয়া আরো সুযোগ পেয়েছিলো রিয়াল তবে বেনজেমা ও আলাবার গোল অফসাইডে কাটা পড়ায় প্রথমার্ধে ১-০ গোলের লিড নিয়েই বিরতি যায় স্পেনের রাজধানীর এই ক্লাবটি।
দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই স্বাগতিকদের চেপে ধরে বেনজেমারা এবং ম্যাচের ৭৫ মিনিটে ফলটাও হাতেনাতে পেয়ে যায় আনচেলত্তির দল। রদ্রিগোর এসিস্ট থেকে গোল করে নিজের নামের প্রতি সুবিচার করেন করিম বেনজেমা। এরপর অবশ্য গোল আরো একটি হয়েছে যেট করেছেন ভিনিসিয়াসের বদলি হিসেবে নামা এসেন্সিও এবং গোলদাতার নাম পরিবর্তন হলেও গোলের কারিগর সেই রদ্রিগো।
ব্যালন ডি’অর প্রসঙ্গটা বাদ দিলে অবশ্য এই ম্যাচের মূল আকর্ষণে ছিলেন দুই তরুণ লাতিন ফুটবলার ভালভার্দে ও রদ্রিগো। এই দুইজন ছড়ি ঘুরিয়েছেন এলচের প্রতিটি খেলোয়াড়ের উপর। গোলের দেখা না পেলেও আগের ম্যাচে একাদশে না থাকা রদ্রিগো এই ম্যাচে সুযোগ পেয়েই বুঝিয়ে দিয়েছেন কেন রিয়াল মাদ্রিদ তাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখে, কেন ব্রাজিল তাকে আগামীর ভবিষ্যৎ ভাবে। এই জয়ে ২৮ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ অবস্থান আরো মজবুত করলো রিয়াল মাদ্রিদ, যদিও আজ রাতে জয় পেলে রিয়াল মাদ্রিদের সাথে পয়েন্ট ব্যবধান তিনে কমিয়ে আনতে পারবে বার্সেলোনা।

অন্যদিকে ডিএফবি পোকালে এক প্রকার ধ্বংস লীলা চালিয়েছে বায়ার্ন মিউনিখ, স্বদেশী ক্লাব আউসবার্গের মাঠে গিয়ে তাদের ৫-২ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে বায়ার্ন। এই ম্যাচে ইনজুরির কারণে ছিলেন না সানে, গোলের দেখা পাননি সাদিও মানে কিন্তু তাতে বড় জয় পেতে তেমন সমস্যা হয়নি বায়ার্ন মিউনিখের। দলের পক্ষে জোড়া গোল ও এক এসিস্ট করে ম্যাচ সেরা হওয়া চুপো মোটিংয়ের পাশাপাশি গোল করেছেন জামাল মুসিয়ালা, কিমিখ এবং ডেভিস। অপরদিকে একই টুর্নামেন্টে ঘরের মাঠে সহজ জয় পেয়েছে ইউনিয়ন বার্লিন এবং স্টুর্টগার্ট। হেইডেন হেইমের বিপক্ষে ২-০ গোলে বার্লিন এবং আর্মিনিয়ার বিপক্ষে ৬-০ গোলের বিশাল জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে স্টুর্টগার্ট।

শেয়ার করুন

আরো পড়ুন

ইউরোপীয় ক্লাব ফুটবলের শীর্ষ আসর চ্যাম্পিয়নস লিগ মানেই তারায় তারায় টক্কর, সেই তারার লড়াই যদি হয় বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি […]

Scroll to Top