Facebook
Twitter
LinkedIn
WhatsApp

চ্যাম্পিয়নস লীগে সাফল্য এবং রিয়াল মাদ্রিদ যেনো এক সুতোয় গাঁথা, অন্য দলগুলো যেখানে এই আসরে ট্রফির সংখ্যা দশের ঘরে নিতে পারেনি সেখানে এক রিয়াল মাদ্রিদই ১৪ খানা ট্রফির মালিক তাই কেউ যদি রিয়াল মাদ্রিদকে চ্যাম্পিয়নস লীগের রাজা দাবি করে তাহলে তাকে ভুল বলার সুযোগ নেই। তবে সেই সাথে নতুন করে লস ব্লাংকসদের গায়ে যুক্ত হয়ে পারে আরেকটি নাম, “ফিরে আসার রাজা”!
রিয়াল মাদ্রিদ যেকোনো পরিস্থিতিতে যেকোনো দলের বিপক্ষে সাফল্য তুলে নিতে পারে তা কারো অজানা নয় তবে গত কয়েক মৌসুম ধরেই যেকোনো ম্যাচে পিছিয়ে পড়লেও আবার সেই ম্যাচে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে ম্যাচ জয়ের নজির স্থাপন করেছে বহুবার এবং বর্তমানে এসে পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছে যে রিয়াল মাদ্রিদের পিছিয়ে পড়া এবং ফিরে আসার গল্প প্রতিটি ফুটবল ভক্তের কাছে নিয়মিত ও পরিচিত একটি ঘটনা। তারই ধারাবাহিকতা বজায় থেকে গতকাল চ্যাম্পিয়নস লীগে নাপোলির বিপক্ষে ম্যাচেও, শুরুতে পিছিয়ে পড়েও ৩-২ গোলের স্মরনীয় জয় তুলে নিয়েছে স্পেনের রাজধানীর এই দলটি।

এই মৌসুমের শুরু থেকেই রিয়াল মাদ্রিদের স্কোয়াড নিয়ে ভক্তরা অসন্তুষ্ট, দলে নেই সত্যিকারের ফিনিশার তার সাথে যোগ হয়েছে একের পর এক ইনজুরির মিছিল। এমন পরিস্থিতিতে ইতালির বর্তমান চ্যাম্পিয়ন নাপোলির ঘরের মাঠে গিয়ে জয় নিয়ে বাড়ি ফেরাটা যে রিয়ালের জন্য সহজ হবে না তা ছিলো অনেকটাই অনুমেয়। সেই অনুমান বাস্তবে রূপ নেয় ম্যাচের ১৯ মিনিটে লিও ওস্টিগার্ডের গোলে নাপোলি লিড নিলে। তবে সেই লিড বেশিক্ষণ ধরে রাখতে পারেনি নাপোলি, গোল হজম করে ম্যাচে ফিরতে মরিয়া হয়ে ওঠা রিয়াল মাদ্রিদ একপ্রকার কোণঠাসা করে ফেলে স্বাগতিকদের। ফলাফলও মেলে খুব দ্রুত, ২৭ মিনিটে নাপোলির অধিনায়কের ভুল পাস থেকে বল কেড়ে নিয়ে একক প্রচেষ্টায় নাপোলির ডিফেন্স ভেঙে ডি বক্সে ভিনিসিয়াসকে পাস দেন বেলিংহাম। সেই পাস থেকে দারুণ এক গোল করে দলকে সমতায় ফেরান সদ্য ইনজুরি কাঁটিয়ে মাঠে ফেরা ভিনি জুনিয়র। ম্যাচে সমতায় ফিরেই থামেনি রিয়ালের আক্রমণ, উল্টো ৩৪ মিনিটে আগের গোলে এসিস্ট করা বেলিংহাম আবারও পায়ের জাদুতে ৩/৪জনকে ড্রিবলিং করে চোখ জুড়ানো এক গোল করে দলকে এগিয়ে নেন। প্রথমার্ধ শেষে বিরতি থেকে ফিরে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের হাতে নেয় নাপোলি যার ফল মেলে খুব দ্রুতই। ম্যাচের ৫৪ মিনিটে নাচোর হ্যান্ডবলের কল্যাণে পেনাল্টি পায় নাপোলি যেখান থেকে গোল করে দলকে সমতায় ফেরান জেলিংস্কি। এরপর দুইদলই গোলের চেষ্টা করলেও গোলকিপারদের দক্ষতায় রক্ষা পায় দুইপক্ষ। তবে সেই সমতা টিকিয়ে রাখতে পারেনি নাপোলি গোলকিপার এলেক্স মেরেট। ম্যাচের ৭৭ মিনিটে ভালভার্দের বুলেট গতির শট পোস্টে লেগে ফিরে এলেও এলেক্সের মাথায় লেগে তা প্রবেশ করে জালে, ফলে ৩-২ গোলে এগিয়ে যায় রিয়াল মাদ্রিদ এবং এরপর নাপোলি চেষ্টা চালিয়ে গেলেও সমতাসূচক গোলের খোঁজ না পাওয়ায় জয় নিয়েই বাড়ি ফেরে রিয়াল মাদ্রিদ।

রিয়াল মাদ্রিদের মতোই ফিরে আসার গল্প গতকাল লিখেছে জার্মান জায়েন্ট বায়ার্ন মিউনিখ। কোপেনহ্যাগেনের বিপক্ষে পিছিয়ে পড়েও মুসিয়ালা ও টেলের গোলে ২-১ গোলের জয় পেয়েছে বাভারিয়ানরা। তবে মাদ্রিদ-মিউনিখের ঠিক বিপরীত ভাগ্য বরণ করেছে ইংলিশ দুই ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও আর্সেনাল। দুই দলই শুরুতে এগিয়ে গিয়ে দেখেছে হারের মুখ। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে দারুণ ছন্দে থাকা আর্সেনাল লেন্সের বিপক্ষে জেসুসের গোলে এগিয়ে গেলেও শেষ পর্যন্ত হেরেছে ২-১ গোলে। অন্যদিকে ম্যানইউর খারাপ সময় যেনো কিছুতেই কাঁটছে না, লিগে একের পর এক হতাশাজন পারফরম্যান্স উপহার দেয়া ম্যানইউ এদিন হোজলুন্ডের গোলে ২বার এগিয়ে গেলেও শেষ পর্যন্ত হেরেছে ৩-২ গোলে, রেড ডেভিলদের হতাশা দ্বিগুণ হয়েছে ক্যাসেমিরোর লাল কার্ডে। আরেক ম্যাচে বেনফিকা বিপক্ষে থুরামের একমাত্র গোলে জয় পেয়েছে ইন্টার মিলান।

শেয়ার করুন

আরো পড়ুন

ইউরোপীয় ক্লাব ফুটবলের শীর্ষ আসর চ্যাম্পিয়নস লিগ মানেই তারায় তারায় টক্কর, সেই তারার লড়াই যদি হয় বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি […]

Scroll to Top